Wednesday 1 April 2020
Home      All news      Contact us      English
jagonews24 - 6 days ago

নার্স-চিকিৎসকদের উদ্দেশ্যে কিউই অধিনায়কের খোলা চিঠি

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রভাবে সারাবিশ্বে নেমেছে এসেছে বিপর্যয়। প্রায় ৮০ ভাগ দেশেই ছড়িয়ে পড়েছে এ মহামারী। এরই মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ২১ হাজারের বেশি মানুষ। সে তুলনায় করোনা প্রতিরোধ-প্রতিকারে এখনও পর্যন্ত বেশ সফল নিউজিল্যান্ড। দেশটিতে এখনও পর্যন্ত ২৮৩ জন করোনায় আক্রান্ত হলেও, মারা যাননি কেউ। বরং ২৭ জন সুস্থ্য হয়ে ফিরে গেছেন বাড়িতে। এমন অসাধারণ কাজের পুরো কৃতিত্ব নিউজিল্যান্ডের নার্স-চিকিৎসকদের। যা মনে করিয়ে দিয়েছেন দেশটির জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। তার মতে, ক্রিকেটাররা নয়, সত্যিকারের চাপ মাথায় নিয়ে কাজ করেন নার্স-চিকিৎসকরাই। তাই দেশের এসব সত্যিকারের হিরোদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে একটি খোলা চিঠি লিখেছেন উইলিয়ামসন। তার পূর্ণাঙ্গ চিঠিটি তুলে ধরা হলো জাগো নিউজের পাঠকদের জন্য- ‘প্রিয় ডাক্তার, নার্স এবং সেবাদানকারীরা, গত কয়েকদিনের ঘটনাক্রম একটা জিনিস পরিষ্কার করেছে যে, আমরা এখন সবাই স্বাস্থ্য নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। যা আগে কখনও দেখা যায়নি। এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, এই সংকটময় পরিস্থিতি কাটিয়ে ওঠার পর যে সময়টা আসবে- তা অনেক বেশি আনন্দের। আমরা কৃতজ্ঞ যে, আপনারা আমাদের পাশে আছেন। মানুষ সবসময় বলে ক্রীড়াবিদদের অনেক চাপ মাথায় নিয়ে পারফর্ম করতে হয়। তবে সত্যিটা হলো আমরা জীবিকার জন্য ভালোবাসার কাজটা করি। আমরা শুধু খেলাটা খেলি। সত্যিকারের চাপ হলো মানুষের জীবন বাঁচাতে কাজ করা। সত্যিকারের চাপ হলো নিজের নিরাপত্তাকে ঝুঁকির মুখে রেখে অন্যের জন্য কাজ করে যাওয়া, অন্যের নিরাপত্তাকে প্রাধান্য দেয়া। আগামী কয়েক সপ্তাহ কিংবা মাস, আপনাদের এই কাজটিই করতে বলা হবে। এটা এমন একটা দায়িত্ব, যা সেরা মানুষরাই শুধু পালন করতে পারে। তারাই পারে যারা মহৎ উদ্দেশ্যে অন্য সব কিছুকে তুচ্ছ করতে পারে। একজন ক্রিকেটার হিসেবে আমরা জানি পুরো দেশের সমর্থন সঙ্গে থাকা কতটা আনন্দের। একইভাবে আমি বলতে চাই, আপনাদের জেনে রাখা উচিৎ, আপনারা কখনওই একাই নই। আমরা আপনাদের জানাতে চাই পুরো দেশ রয়েছে আপনাদের পেছনে। আপনাদের কারণেই এ সংকটময় পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠবো আমরা।’ এসএএস/জেআইএম


Latest News
Hashtags:   

নার্স

 | 

চিকিৎসকদের

 | 

উদ্দেশ্যে

 | 

অধিনায়কের

 | 
Most Popular (6 hours)

Most Popular (24 hours)

Most Popular (a week)

Sources